February 26, 2021, 10:40 am
ব্রেকিং :
সিলেটে দুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে ১১ জন নিহত স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগে স্বামী গ্রেফতার রায়পুর পৌর নির্বাচন-কে ঘিরে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থীর নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা বঙ্গবন্ধু পরিবার সততা ও সাহসের প্রতীক : কাদের সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালনের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর পিলখানা হত্যায় শহীদদের প্রতি রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা বনানীতে ছুরিকাঘাতে তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রের মৃত্যু ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করতে আগ্রহী বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র বঙ্গবন্ধুর আদর্শ যদি লালন করি দেশের মানুষ আর কষ্টে থাকবে না:মাইনুল হোসেন খান নিখিল স্টার্টআপ যশোর এর “স্টার্টআপ ক্যাম্প ২০২১” এর সফল সমাপ্তি
শিরোনাম:
রায়পুর-ফরিদগঞ্জ সড়কে আনন্দ বাসের ধাক্কায় মটরসাইকেল আরোহী নিহত উইঘুর মুসলিম নারীদের ইলেক্ট্রিক শক দিয়ে গর্ভপাত করছে চীন সরকার চীনে নতুন ফ্লু ভাইরাস শনাক্ত, রয়েছে মহামারির শঙ্কা: বিবিসি লক্ষ্মীপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট নুরউদ্দিন চৌধুরী নয়ন করোনায় আক্রান্ত। দৈনিক আমাদের লক্ষ্মীপুর এর সম্পাদক ও প্রকাশক বায়েজীদ ভূঁইয়া তাকে দেখতে যান।

লক্ষ্মীপুর রায়পুরের ২১০ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নেই

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি: শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালনের নির্দেশনা থাকলেও লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে হাতেগোনা কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা কলাগাছ, কাপড় ও বাঁশ দিয়ে অস্থায়ী শহীদ মিনার তৈরি করে পালন করে দিবসটি।

রায়পুর উপজেলার বেশিরভাগ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নেই শহিদ মিনার। যে কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে রয়েছে সেগুলোর অবস্থাও জরাজীর্ণ। শহিদ মিনার না থাকায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানোর ইচ্ছাটুকুও অপূর্ণ রয়ে যায়।

রায়পুর উপজেলা প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের তথ্যমতে- উপজেলায় সরকারি প্রাথমিক ১২১টি, বেসরকারি প্রাথমিক ৪৪টি মাধ্যমিক ৩৪টি, মাদরাসা ২০টি ও কলেজ রয়েছে সরকারি ১টিসহ ৮টি, মোট ২২৬টি । এরমধ্যে সাড়ে ২১০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেই কোনো শহিদ মিনার নেই।

ফলে, একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে এসব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা ভাষা শহীদদের প্রতি যথাযথ শ্রদ্ধা জানাতে পারছে না। উপজেলার সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে দিনটি পালনের নির্দেশনা থাকলেও হাতেগোনা কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা কলাগাছ, কাপড় ও বাঁশের কি দিয়ে অস্থায়ী শহীদ মিনার তৈরি করে পালন করে দিবসটি।

রায়পুর উপজেলার কেরোয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সুমাইয়া আক্তার বলে, “আমাদের স্কুলে শহিদ মিনার না থাকায় একুশে ফেব্রুয়ারির দিনে ভাষা শহীদদের আমরা শ্রদ্ধা জানাতে পারি না।” সেদিন বাড়ীতে থাকি না বড় ভাইদের সাথে উপজেলায় যাই।

দেবিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শামছুন্নাহার বলেন, “শহিদ মিনার নেই, একথা সত্য। তবে আমরা শহিদ মিনার স্থাপনের উদ্যোগ নিচ্ছি। এটা খুব দরকার।” এখনও পর্যন্ত সরকারি বরাদ্দ না পাওয়ায় একই কমপ্লেক্সের ভিতরে তিনটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রাঙ্গণে শহিদ মিনার নির্মাণ করা হয়নি। তবে জেলা পরিষদ সদস্য কয়েকবার প্রতিশ্রুতি দিলেও তা আর হচ্ছে না বলে জানান তিনি।

চরবংশী ইউপির চরকাছিয়া আশ্রায়ন কেন্দ্র প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪র্থ শ্রেণীর ছাত্রী সুপিয়া বেগম বলে, চার বছর ধরি আঙ্গো-স্কুলে শহীদ মিনার নাই। আন্ডা কলা গাছ ও বাঁশ দিয়া শহিদ মিনার বানাই আনন্দ করি।

রায়পুর উপজেলা শিক্ষা অফিসার একেএম মোস্তাক আহাম্সদ জানান, “উপজেলার ২২৬ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মধ্যে ২১০টিতে শহিদ মিনার নেই। যেসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শহিদ মিনার নেই তাদের তালিকা প্রস্তুত করে জেলা শিক্ষা অফিসারের কাছে পাঠিয়েছি।” তাছাড়া প্রাথমিক ও গনশিক্ষা মন্ত্রনালয়ের নকশা না দেয়া পর্যন্ত শহীদ মিনার নির্মাণ নিষেধ রয়েছে।

রায়পুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাবরীন চৌধুরী জানান, ” যেসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শহিদ মিনার নেই সেখানে শহিদ মিনার নির্মাণের জন্য শিক্ষকদের উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে।
বিভিন্ন সভায় শিক্ষকদেরকে নির্দেশনাও দেয়া হয়েছে। একইসাথে সরকারি বরাদ্দ পাওয়ারও চেষ্টা চলছে।



ফেসবুক পেইজ

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
সুস্থ
মৃত্যু

বিশ্বে

আক্রান্ত
সুস্থ
মৃত্যু