লক্ষ্মীপুরে পালেরহাট পাবলিক হাইস্কুলের ছাত্রী হীরা মণিকে (১৪) ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারের দাবিতে মানববন্ধন করা হয়েছে। এ সময় প্রশাসনকে ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দেয়া হয়।

শনিবার (১৩ জুন) বেলা ১১টার দিকে সদর উপজেলার লক্ষ্মীপুর-রামগঞ্জ সড়কের পালেরহাটে বিদ্যালয়ের সামনে এ মানববন্ধন করা হয়। কিন্তু মানববন্ধনের বিষয়ে আগে পুলিশকে জানানো হয়নি বলে কর্মসূচি শুরু হওয়ার ১০ মিনিট পর পুলিশি বাধায় তা পণ্ড হয়ে যায়।

জানা গেছে, পালেরহাট পাবলিক হাইস্কুলের প্রাক্তন ছাত্র ফোরাম ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন অল ইয়ুথ সোসাইটির উদ্যোগে মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়। হিরা মনি হত্যার ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতার করতে মানববন্ধন থেকে প্রশাসনকে ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দেন বক্তারা।

এদিকে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে লক্ষ্মীপুর পুলিশ সুপার (এসপি) ড. এএইচএম কামরুজ্জামান নিহত স্কুলছাত্রী হিরা মনির বাড়িতে যান। এ সময় তিনি হিরার অসুস্থ মা-বাবা ও স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলেন।

এসপি কামরুজ্জামান জানান, অজ্ঞাত আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। আটক যুবক আরিফ ও সুমনকে পুলিশ হেফাজতে রেখে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতার করা হবে। এ বিষয়ে পুলিশের ওপর আস্থা রাখতে আহ্বান জানান এসপি।

Lakhipur

মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন লক্ষ্মীপুর জেলা পরিষদের সদস্য সাখাওয়াত হোসেন আরিফ ও পালেরহাট পাবলিক হাইস্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি নাজমুল করিম টিপু ও স্কুলের সাবেক শিক্ষার্থীসহ অর্ধশতাধিক গ্রামের লোক।

নিহত হিরা মনির মা ফাতেমা বেগম জানান, তার মেয়েকে স্থানীয় চম্পকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্র অয়ন উত্ত্যক্ত করতো। মেয়েকে উত্ত্যক্ত না করতে কয়েকবার তিনি অয়নকে বুঝিয়েছেন। কিন্তু সে শোনেনি। যারা তার মেয়েকে নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করেছে, তাদের ফাঁসি চান তিনি।

পালেরহাট পাবলিক হাইস্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি নাজমুল করিম টিপু বলেন, পুলিশের নির্দেশে আমরা মানববন্ধন স্থগিত করেছি। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতার করতে আল্টিমেটাম দিয়েছি। না হয় বিক্ষোভসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করা হবে।

প্রসঙ্গত, শুক্রবার (১২ জুন) দুপুরে লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার দক্ষিণ হামছাদী ইউনিয়নের পশ্চিম গোপীনাথপুর গ্রামে নবম শ্রেণির ছাত্রী হিরা মনিকে ঘরে একা পেয়ে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধ করে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। হিরা মনি একই গ্রামের হারুনুর রশিদের মেয়ে। ক্যান্সারে আক্রান্ত বাবাকে নিয়ে তার মা ও ছোট দুই ভাইবোন ঢাকায় হাসপাতালে ছিলেন। হিরা মনিও শুক্রবার সকালে নানার বাড়ি থেকে নিজ বাড়িতে এসেছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published.