নিজস্ব প্রতিবেদক ॥
রাজধানীতে জেলেদের অধিকার নিশ্চিত করণে ‘জাতীয় পরামর্শ’ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত ১১ নভেম্বর সিরডাপ মিলনায়তনে মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন এর সহযোগিতায় এ সভার আয়োজন করে কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট সেন্টার (কোডেক)। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন বরিশাল-৪ আসনের সংসদ সদস্য পংকজ নাথ।
কোডেক এর উপ-নির্বাহী পরিচালক কমল সেন গুপ্ত এর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন এর নির্বাহী পরিচালক শাহীন আনাম, কক্সবাজার-২ আসনের সাংসদ আশেক উল্লাহ রফিক, পটুয়াখালী-৪ আসনের সাংসদ মহিবুর রহমান মহিব, নারী আসন-১১ (কুমিল্লা) সাংসদ অ্যারোমা দত্ত, নারী আসন-২৮ (বরিশাল) এর সাংসদ সৈয়দা রুবিনা আক্তার মীরা এবং জাতীয় সমাজ সেবা একাডেমী এর অধ্যক্ষ মোঃ সাফায়েত হোসেন তালুকদার।
স্বাগত বক্তব্য রাখেন, কোডেক এর পরিচালক (প্রশিক্ষণ) সফি উল্লাহ মজুমদার, জীবন ও জীবিকাবিদ ড. হামিদুল হক জেলেদের অধিকার বিষয়ক গবেষণা পত্র উপস্থাপন করেন। আরো বক্তব্য প্রদান করেন ড. মোঃ আবদুল ওয়াহাব, উপদেষ্টা-ওয়ার্ল্ড ফিস ও কৃষি বিশ^বিদ্যালয়ের সাবেক প্রফেসর নিরাপদ সংস্থার উপদেষ্টা-গহ হরন ইমওয়ারা, কোষ্ট ট্রাষ্ট এর নির্বাহী পরিচালক রেজাউল করিম, উপদেষ্টা-আমিনুর রসুল, আরডিএফ এর নির্বাহী পরিচালক গোলাম মোস্তফা, মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের সিনিয়র প্রোগ্রাম কোর্ডিনেটর সাজাত খান এবং জেলে প্রতিনিধি সোরাব মাঝি, আবদুল মজিদ, মোঃ হানিফ, ব্রজ দাস, শরুপা বেগম ও আবুল কালাম মাঝি প্রমুখ।

এসময় বিভিন্ন জেলে সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, কোডেক পিআইডিএফসি প্রকল্পের প্রকল্প সমন্বয়কারী মোরশেদা বেগম, সরকারী বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা, সাংবাদিকসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার লোকজন উপস্থিত ছিলেন।

জেলেরা সন্তুষ্টি প্রকাশ করে বলেন, প্রধানমন্ত্রী জেলেদের আইডি কার্ড প্রদান করায় জেলেরা সরকারী সুযোগ-সুবিধা পাচ্ছে এবং তাযাতে অব্যাহত থাকে ও বৃদ্ধি পায় সে অনুরোধ জানান। পরিচয়পত্র প্রাপ্ত জেলে মারা যাওয়ার পর তার পরিবারের সন্তান প্রাপ্তবয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত সরকারি প্রণোদনা প্রদান করা, বিদেশী মাছ ধরার নৌকাকে লাইসেন্স না দেয়া, জেলেদের নিরাপত্তা নিশ্চিত ও সকল সুযোগ- সুবিধা নিশ্চিত করা।
সাংসদগণ ও প্রধান অতিথি জেলেদের ন্যায্য দাবী গুলো মনোযোগ সহকারে শুনেন এবং দাবী গুলো মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটিকে অবহিত করবেন বলে জানান। ভাসমান জেলেদের আবাসন সমস্যা দূরী করনের জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসারদের নিকট আবেদন করার জন্য বলেন এবং পরিবার ভিত্তিক জেলে কার্ড প্রদানের পক্ষে তিনি মতামত দেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.